মধুপিডিয়া

মধু কী দিয়ে তৈরি হয়? মধুর উপাদানসমূহ (সংক্ষিপ্ত তালিকা)

 

মধু জৈবিকভাবে সক্রিয় একটি পদার্থ এবং এর গঠন অত্যন্ত জটিল। মধুর উপাদান নির্ভর করে মৌমাছি যে ফুলের রস পান করছে তার উপর। তবে মধুর সকল উপাদানই মানুষের জন্য উপকারী। মধুতে ৩০০টিরও বেশি উপাদান আছে যা মানুষের বিপাক প্রক্রিয়ার জন্য উপকারী।

 

• শর্করা- ৩৮% ফ্রুক্টোজ, ৩১% গ্লুকোজ ১৮-২০% পানি, ৫% ডেক্সট্রিন এবং ১.৫-৩% সুক্রোজ,

•০.১ থেকে ২.৩% প্রোটিন;

•০.১-০.২% খনিজ উপাদান

•০.০০৩ থেকে ০.২% জৈব এসিডের লবণ (ম্যালিক, ল্যাক্টিক, সরেলের, সাইট্রিক এবং টারটারিক)

•প্রায় সকল প্রাকৃতিক ট্রেস উপাদান (লৌহ, ফসফরিক, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, তামা, সালফার, পটাসিয়াম, কোবাল্ট, জারমেনিয়াম, স্বর্ণ ইত্যাদি)

•এনজাইম হলো এমন উপাদান যা খুব অল্প মাত্রায় উপস্থিত থেকে ব্যাপকভাবে বিপাক ক্রিয়াকে প্রভাবিত করে। মধুতে থাকা এনজাইম হলো ইনভারটেজ, ডায়াটেজ, এমাইলেজ, ফসফরেজ ইত্যাদি

•অল্প পরিমাণ ভিটামিন (বি১, বি২, বি৩, বি৫, বি৬, এইচ, কে, সি, এ, পিপি, প্রোভিটামিন এ)

•এন্টিব্যাক্টেরিয়াল, এন্টিফাংগাল, এন্টিডায়াবেটিক, হরমোনাল, সুগন্ধি, রঙ ইত্যাদি জৈব যৌগ।

বিভিন্ন ফুল থেকে আহরিত মধুর মাঝে রঙ, গন্ধ ও উপাদানে পার্থক্য থাকে। মধুতে পরাগরেণুর পরিমাণের ভিত্তিতে এতে ভিটামিনের পরিমাণ বাড়ে। জমা রাখা অবস্থায় সবজি, ফল ও অন্যান্য খাবারের ভিটামিন আস্তে আস্তে কমতে থাকে। এ কথা মধুর জন্য প্রযোজ্য নয়। এতে রক্ষিত ভিটামিন ও অন্যান্য উপাদান পুরোপুরি সংরক্ষিত থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *